বিয়ে না হওয়াতে মেয়েকে খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক

0

রংপুরে বদরগঞ্জ উপজেলায় বিষ্ণুপুর ইউনিয়নে নামাজরত অবস্থায় মায়ের হাতে খুন হয়েছে এক তরুণী। পরবর্তীতে আত্মীয়স্বজনকে আত্মহত্যা বলে দাবি করেন তার মা।

ঘটনার প্রায় ২৪ ঘন্টা পর মা নিজেই স্বীকার করেন, আত্মহত্যা করেনি তার মেয়ে, তিনি নিজেই পেছন দিক থেকে ধারালো ছুরি দিয়ে
জাপটে ধরে গলায় ছুরি চালিয়ে দিয়েছেন কয়েকবার।

ভোক্তভোগী মাহবুবা আক্তার মেরী নামাজরত অবস্থায় থাকায় মায়ের ফন্দি কিছুই বুঝতে পারেনি। গতকাল (শনিবার) দুপুরে ১৬৪ ধারায় দেওয়া জবানবন্দির ঘটনায় বিস্তারিত তুলে ধরেন জাহানারা বেগম। রংপুরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ৪-এর বিচারক আল-মেহেবব তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

এ ঘটনাকে তখনই রহস্যজনক দাবি করেছিলেন বদরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ হাবিবুর রহমান। গলায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে করা একাধিক ক্ষত, পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ না দেওয়াসহ বিভিন্ন বিষয় পর্যালোচনা করে এটিকে আত্মহত্যা হিসেবে মেনে নিতে পারেনি পুলিশ।

নিজের মেয়েকে হত্যার কারণ জানতে চাইলে জাহানারা বলেন, মেরী কয়েক বছর ধরে মৃগীরোগে আক্রান্ত ছিলেন। যে কারণে তার বিয়ে হচ্ছিল না। তার চিকিৎসাতেও প্রচুর টাকা খরচ হয়। এসব কারণে মেরীর সাথে পরিবারের অন্য সদস্যদের প্রায় সময়ই ঝগড়া হতো। সেদিনও মা ও মেয়ের মধ্যে ঝগড়া হয়। এতেই ক্ষিপ্ত হন জাহানারা এবং র রাগের মাথায় করে বসেন । ঘটনাস্থলেই মেরীর মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় নিহতের চাচা সিরাজুল ইসলাম বাদী হয়ে বদরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন বলে জানা যায়।