রমজানকে সামনে রেখে বাড়ছে দ্রব্যমূল্যের দাম

ক্রেতাদের ভোগান্তি বাড়ছে

0

 

এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময়ে শুরু হচ্ছে পবিত্র রমজান। পবিত্র এ মাসকে কেন্দ্র করে প্রতিবছর কিছু অসাধু ব্যবসায়ী নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্তদের শুষে নিয়ে তাদের পকেট ভারী করে। এ বছরো তার ব্যতিক্রম লক্ষ করা যাচ্ছেনা, শুরু হয়ে গেছে দামবৃদ্ধির প্রবণতা।

করোনার মহামারিতে সাধারণ মানুষের অর্থিক অবস্থা যখন যারপরনাই খারাপ তখন বাড়তে শুরু করেছে নিত্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন দ্রব্যের মূল্য। যার মধ্যে রয়েছে চাল, ডাল, তেল, ছোলা, চিনি, পেঁয়াজ, চিড়া, নারকেলসহ আরও বেশকিছু পণ্যের দাম।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ভোগ্যপণ্যের মজুদ যথেষ্ট এবং দাম না বাড়ার কথা বললেও উল্টো চিত্র বাজারে।
সরকার নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য নির্ধারণ করে দিলেও সেই মূল্যে সয়াবিন তেল মিলছে না চট্টগ্রাম, কক্সবাজার শহরে। রমজানকে টার্গেট করে ভোগ্য পণ্যের দাম বাড়ানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে ক্রেতা সাধারণ।

বাজার

কনজিউমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ
(ক্যাব) দাবি করেছেন, প্রতি বছরের মত কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী ও আমদানিকারক। এ জন্য বাজার মনিটরিং জোরদারের প্রয়োজন। এখন থেকে জড়িতদের চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেওয়া হলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে বলে দাবি তাদের।

তবে ব্যবসায়ীদের দাবি- আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের দাম বৃদ্ধি ও সরবরাহ সংকটে প্রভাব পড়েছে স্থানীয় বাজারে।