লকডাউন কার্যকরে মাঠে প্রশাসন

0

আজ সকাল থেকেই পরিবহন ও জনসাধারণের চলাচলের উপর সরকার কর্তৃক আরোপিত সপ্তাহব্যাপী নিষেধাজ্ঞায় কক্সবাজার শহরের প্রধান সড়কের বেশিরভাগ দোকান বন্ধ ছিল। ঔষধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান খোলা রয়েছে। লকডাউন কার্যকরে প্রশাসন মাঠে নেমেছে।

কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন পয়েন্ট পরিদর্শন করার সময় কক্সবাজার সংবাদদাতা দেখতে পেয়েছেন এখনো স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মানুষজন চলাফেরা করছে। দেখা যায় নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য কিনতে আসা জনসাধারণ শারীরিক দূরত্ব, মাস্ক ব্যবহারের নিয়ম মানছেন না।

মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ১১ দফা নির্দেশনা দিয়ে সাত দিনের লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। লক ডাউন কার্যকর ও স্বাস্থ্যবিধির প্রতি জনগণকে সচেতন করতে অভিযানে নামেন জেলা প্রশাসক মোঃ মামুনুর রশিদের নেতৃত্বে একটি দল। এই সময় জন সাধারণকে স্বাস্থ্যবিধি মানার অনুরোধ করা হয় এবং মাস্ক প্রদান করা হয়।

এই সময় জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, কক্সবাজারবাসী অনেক সহযোগীতা করেছে, তারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে। শুধু নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকানপাট যেগুলো খোলা থাকার কথা ছিল সেগুলোই খোলা আছে। আমরা খুব আশাবাদী ৭ দিনের এই নিষেধাজ্ঞা যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করতে পারব।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মামুনুর রশিদ

লকডাউনের শুরুর দিনে নিষেধাজ্ঞার কারণে দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকলেও ব্যক্তিগত গাড়ি, রিকশা, সিএনজি, মোটরসাইকেল চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। মানুষ রাস্তায় বের হয়েছে। তবে নির্দেশনা অনুযায়ী শপিং মল সহ অন্যান্য সকল দোকানপাট বন্ধ রয়েছে।

লক ডাউন বাস্তবায়নের সকাল থেকে রাস্তা, হাঁটবাজারে অভিযান পরিচালনা করছেন উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আহাম্মদ সনজুর মোরশেদ। সেই সাথে লকডাউন বাস্তবায়নে সহযোগিতা করার জন্য সবাইকে আহ্বান জানান তিনি।

উখিয়া উপজেলা অফিসার ইনচার্জ

লক ডাউনের কারনে কক্সবাজার এবং উখিয়ার রাস্তায় যানবাহন চলাচল তুলনামূলক কম রয়েছে। এবং কোনখানে জ্যাম লক্ষ করা যায়নি।