রমজান নিয়ে যত বিভ্রান্তি!

মোহাম্মদ মাসুদ

0

রোজা ইসলামী শরিয়তের পঞ্চ বুনিয়াদের অন্যতম তাৎপর্যপূর্ণ ইবাদত।

রোজার গুরুত্ব সম্পর্কে আল্লাহ পাক বলেন, “রোজা আমার জন্য আমি নিজেই এর প্রতিদান দিব।” (হাদীসে কুদসী)

মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “রোজা ঈমানদারদের জন্য ঢাল স্বরূপ” (জাহান্নাম থেকে রক্ষার ঢাল স্বরূপ)।

কিন্তু মুসলমানদের মাঝে এই রমজান নিয়ে অনেক বিভ্রান্তি রয়েছে। আজকে সে বিভ্রান্তি গুলো তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

অনেকেই আলসেমির কারণে ঘুম থেকে উঠে না সাহরি খাওয়ার জন্য। কিন্তু এই সাহরি খাওয়ার জন্য হাদীসে তাগাদা দেয়া হয়েছে। সাহরি না খেয়ে রোজা রাখা এটা সুন্নাত পরিপন্থী।

অনেকেই আছে ফযরের আযানের আগ পর্যন্ত সাহরি খায়। আযানের সাথে সাহরির কোন সম্পর্ক নেই। সুবহে সাদিকের আগেই সাহরি খাওয়া শেষ করতে হবে। আর আযান দেওয়া হয় সুবহে সাদিক শুরু হওয়ার পর।

এছাড়া এমন অনেক বিষয় রয়েছে যার দরুন রোজা ভঙ্গ হয় না কিন্তু এগুলোর বিষয়ে আমাদের মাঝে বিভ্রান্তি রয়েছে। অর্থাৎ এমন কাজ যা রোজা নষ্ট করে না। সে সমস্ত কাজ হলো।

১.রোজা স্মরণ না থাকা অবস্থায় রোজাদার ভুলবশত দিনের বেলায় পানাহার বা স্ত্রী সঙ্গম করলে রোজা নষ্ট হয় না। স্মরণ হওয়ার সাথে সাথেই তা পরিত্যাগ করতে হবে। স্বরণ হওয়ার পরেও যদি ঐ কাজে লিপ্ত থাকে, তবে রোজা নষ্ট হয়ে যাবে।

২.থুথু বা কফ গিলে ফেললে রোজা নষ্ট হয় না, তবে সতর্ক থাকা চাই।

৩. ধোঁয়া, ধুলি-বালি ও মাছি কণ্ঠনালীর ভিতরে ঢুকে গেলে রোজা নষ্ট হয় না। যদি ইচ্ছাকৃতভাবে প্রবেশ করার, তবে রোজা ভঙ্গ হয়ে যাবে।

৪. শিঙ্গা বসালে রোজা নষ্ট হয় না।

৫. দাঁত হতে রক্ত বের হয়ে যদি ভেতরে চলে যায় এবং রক্তের স্বাদ যদি ভিতরে অনুভব না হয় তবে রোজা নষ্ট হবেনা। আর যদি রক্তের স্বাদ কণ্ঠনালীর ভিতরে অনুভব হয়, তবে রোজা নষ্ট হয়ে যাবে।

৬. স্বপ্নদোষ হলে রোজা নষ্ট হয় না।

৭. গোসল বা মাথায় পানি ঢালার সময় যদি পানি কানে প্রবেশ করে, এতে রোজা নষ্ট হয় না।

৮. সুবহে সাদিকের আগ হতে সাহরি খাওয়া শুরু করলে দেখা গেলো যে সুবহে সাদিকের সময় হয়ে গেছে। সুবহে সাদিক হওয়ার সাথে সাথে যদি খাবার বা গ্রাস মুখ থেকে ফেলে দেয়, তাহলে রোজা নষ্ট হবে না। আর যদি সুবহে সাদিক হওয়ার পরেও খাবার বা গ্রাস খেয়ে ফেলে তবে রোজা নষ্ট হয়ে যাবে।

৯. তিল, সরিষা, রাই পরিমাণ কোন খাদ্য বস্তু চর্বন করার পর থুথুর সাথে যদি কণ্ঠনালীর ভিতরে চলে যায়, তবে রোজা নষ্ট হবে না। হ্যাঁ, যদি এর স্বাদ কণ্ঠনালীতে অনুভব হয় তবে রোজা নষ্ট হবে। 

রমজান নিয়ে যত বিভ্রান্তি রয়েছে সকল দূর করে রাসূলে পাকের সুন্নাহ অনুযায়ী রোজা পালন করার জন আল্লাহ তায়ালা আমাদের তাওফীক দান করুন, আমীন।

তথ্য সূত্র: গাউসিয়া তারবিয়াতি নেসাব