বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গার্ড অব অনারে নারীদের বিকল্প চায় সংসদীয় কমিটি

0

মৃত্যুর পর বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গার্ড অব অনার দেয়ার সময় নারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) চায় না সংসদীয় কমিটি। যেসব এলাকায় নারী (ইউএনও) রয়েছে সেখানে বিকল্প খোঁজার সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি।

আজ রোববার (১৩ জুন) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়। এছাড়া দিনের বেলা গার্ড অব অনার আয়োজন করার সুপারিশ করা হয়। সংসদ সচিবালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

জানা যায়, বৈঠকে একজন সদস্য বলেন, সাধারণত নারীরা জানাজায় অংশ নেন না। এটি নিয়ে সমাজে অনেকে প্রশ্ন তোলেন। তাই বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গার্ড অব অনার দেওয়ার ক্ষেত্রে যেখানে নারী ইউএনও আছেন, সেখানে বিকল্প একজন পুরুষ কর্মকর্তা নির্ধারণ করা প্রয়োজন।

এছাড়া চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে জিয়া শিশুপার্কের স্থানে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের সুপারিশ করে কমিটি।

কমিটির সভাপতি শাজাহান খানের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, রাজি উদ্দিন আহমেদ, রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম, কাজী ফিরোজ রশীদ, ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল এবং মোছলেম উদ্দিন আহমদ অংশ নেন।

বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি শাজাহান খান সাংবাদিকদের বলেন, নারীরা তো জানাজায় থাকতে পারেন না। তাই নারী ইউএনও গার্ড অব অনার দিতে গেলে স্থানীয় পর্যায়ে অনেকে প্রশ্ন তোলেন।

সেজন্য এ বিষয়ে বৈঠকে একটি প্রস্তাব এসেছে। নারীর বিকল্প একজন পুরুষকে দিয়ে গার্ড অব অনার দেয়ার বিষয়টি এসেছে। আমরা মন্ত্রণালয়কে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করেছি।

সাংবাদিক শরিফুল হাসান বলেন, আমি মনে করি এটা নারী কর্মকর্তাদের অপমান। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গেও এটি যায় না। কারণ, বরং ধর্ম-বর্ণ-লিঙ্গসহ সব ধরেনর বৈষম্যের বিরুদ্ধে সমতা প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন নিয়ে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল।

নারীদের জানাজায় অংশ নেওয়া প্রসঙ্গে ইসলাম বলে, নারীদের জন্য জানাজার নামাজে বের হওয়া জায়েজ নেই, এমনকি লাশের সঙ্গে যাওয়াও। হজরত নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, সাহাবায়ে কেরাম ও তাবেয়িনদের থেকে এ ব্যাপারে সুস্পষ্ট নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।