কক্সবাজারে দুই দিনে পাহাড় ধ্বসে ১৪ জনের মৃত্যু

0

আবারো কক্সবাজারের টেকনাফে পাহাড় ধ্বসে একই পরিবারের ৫ জন নিহত হয়েছেন। অপরদিকে মহেশখালী হোয়ানকে এক বয়োবৃদ্ধ পাহাড় ধসে নিহত হয়েছে।

এদিকে নাইক্ষ্যংছড়িতে পাহাড় ধ্বসে কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। একই উপজেলার নাইক্ষ্যংছড়ি এলাকার ঘুমধুমে বন্যার পানিতে ভেসে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৬ জন, মহেশখালী ও টেকনাফে আরো ২ জনসহ ৮ জন পাহাড় ধ্বসে নিহত হয়েছিল। গত দুইদিনে পাহাড় ধ্বসে সর্বশেষ এই সংবাদ প্রকাশ পর্যন্ত মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) ১৪ জন ও পানিতে ভেসে ৩ জন সহ মোট ১৭ জনের মৃত্যুর খবরে নিশ্চিত হয়েছে দৈনিক জয়বাংলা।

বুধবার (২৮ জুলাই) টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের পানখালী ভিলেজার পাড়ায় পাহাড় ধ্বসে একই পরিবারের ছৈয়দ আলমের ৩ ছেলে ও ২ মেয়েসহ ৫ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

নিহতরা হলেন- আব্দু শুক্কুর (২০), মো. জোবায়ের (১৩), আব্দুল লতিফ (৮), কোহিনূর আক্তার (১৪) ও জায়নুরা (১২)। এ সময় ঘরের অন্যপাশে থাকায় সামান্য আহত হলেও প্রাণে বেঁচে যান সৈয়দ আলম ও রেহেনা বেগম দম্পতি। বুধবার (২৮ জুলাই) দিবাগত রাত সাড়ে ১টায় এই ঘটনা ঘটে।

হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ডের সদস্য হোছেন আহমেদ জানান, অতিরিক্ত বৃষ্টির ফলে পাহাড়ের কিছু অংশ ভেঙ্গে বাড়ির উপর পড়ে সৈয়দ আলমের পরিবারের ৫ জন সদস্য ঘটনাস্থলে মারা যায়।

এ ব্যাপারে হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী জানান, ঘটনার খবর পেয়ে গভীর রাতে আমি সরাসরি ঘটনাস্থলে যায়। পাহাড় ধসে একই পরিবারের ৩ ছেলে ২ মেয়েসহ মোট ৫ জন নিহত হয়েছে।

এদিকে টেকনাফ মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতদেহগুলো উদ্ধার করেছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাফিজুর রহমান।

কক্সবাজারের পাশ্ববর্তী উপজেলা নাইক্ষ্যংছড়িতে পাহাড় ধসে কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। ঘুমধুমে বন্যার পানিতে ভেসে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গত মঙ্গলবার বিকালে ঘুমধুম ৬ নম্বর ওয়ার্ডের বড়ুয়া পাড়া সড়কে এ ঘটনা ঘটে।

৬ নম্বর ওয়ার্ডের চৌকিদার রঞ্জিত বড়ুয়া বলেন, তারা ৩ জন বন্যার পানি দেখতে রাস্তায় বের হন। এক পর্যায়ে তারা সড়কের কোমর পানির অংশ পার হতে গিয়ে দুজন স্রোতে ভেসে যায়।

এদের একজন সুমন বড়ুয়া (১৭)। তার বাড়ি ঘুমধুমের শীল পাড়ায়। তার সাথে আবদুর রহিম (২৮) নামে এক রোহিঙ্গাও ভেসে গেছেন। তবে তার খোঁজ এখনও পাওয়া যায়নি।

অপরদিকে মহেশখালীর হোয়ানক রাজুয়ার ঘোনায় পাহাড় ধসে আলী হোসেন (৮০) নামের বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) দিবাগত রাতে মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আবু বকর সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
নিহতের ছেলে নুরুল আলম বলেন, টানা বৃষ্টি ও পাহাড় ধসে বাড়িতে মাটি ঢুকে পড়ে। এতে অন্যান্য সদস্যরা বের হতে পারলেও ঘরে আটকে যায় বৃদ্ধ পিতা আলী হোসেন। পরে পাহাড়ের মাটির আঘাতে তার মৃত্যু হয়।