ভাষানচরে রোহিঙ্গাদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় প্রশাসন

0

নোয়াখালীর ভাসানচরের আশ্রয়ণ থেকে রোহিঙ্গাদের পালানো ঠেকাতে নানা ব্যবস্থা নিয়েও প্রশাসনকে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

পালানোর সময় নৌকা ডুবে মৃত্যু এবং পুলিশের হাতে ধরা পড়ার ঘটনাও ঘটছে। তারপরও থামছে না পলায়নের এই প্রবণতা।

এছাড়া এখান থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীর বিভিন্ন এলাকা থেকে দুইশ রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়েছে। তাদের পালাতে সহায়তার অভিযোগে দালাল সন্দেহে ১৭ জন বাঙালিকে আটক করা হয়েছে।

এসব ঘটনায় থানায় ভাসানচর থানায় আটটি মামলা হয়েছে বলেও ওসি জানান।

ভাসানচর থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম জানান, এ পর্যন্ত ৬৬৮ জন রোহিঙ্গা ভাসানচর থেকে পালিয়েছে। তাদের মধ্যে ১৩ জন স্বেচ্ছায় আবার ফিরে এসেছে। পালিয়ে যাওয়ার সময় সাগরে নৌকা ডুবে ১৪ রোহিঙ্গা নারী, পুরুষ ও শিশু মারা গেছে।

নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার ভাসানচরে সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পে ছয় দফায় ১৮ হাজার ৩৩৪ জন রোহিঙ্গাকে স্থানান্তর করা হয়েছে। বর্তমানে ১৮ হাজার ৫৯৩ জন রোহিঙ্গা বসবাস করছে এখানে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সুবর্ণচর উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের এক জনপ্রতিনিধি বলেন, রোহিঙ্গার ভাসানচরে আসার পর থেকে মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের চর আলাউদ্দিন গ্রামের ৫০-৬০ জনের একটি চক্র তাদের পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করছে। এই চক্রটি এক সময় নদীতে দস্যুতার সঙ্গে জড়িত ছিল।

তারা জনপ্রতি ২৫-৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে রাতের অন্ধকারে ভাসানচর থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের চর আলাউদ্দিনের গোপাল ঘাটে নামিয়ে সেখান থেকে অটোরিকশা বা মোটরসাইকেলে জেলা সদরের সোনাপুর বাস টার্মিনালে পৌঁছে দেয়।

রোহিঙ্গা পাচারের অভিযোগে চর আলাউদ্দিন গ্রামের সাইফুল, নুর ইসলাম ও রুবেল পুলিশের হাতে ধরা পড়ে এখন কারাগারে রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

ভাসানচর থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গাদের অনেকে সাগরে মাছ ধরার অজুহাতে আইনশৃংখলা বাহিনীকে ফাঁকি দিয়ে পালিয়েছে।

ভাসানচরে অতিরিক্ত শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ মোয়াজ্জম হোসাইন বলেন, “ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে বিভিন্ন কার্যক্রম চালু রয়েছে। সব ধরনের সুযোগ সুবিধা পেয়ে অধিকাংশ রোহিঙ্গা এখানে থাকতে চাচ্ছে। এরপরও দুচার জন দালাল তাদেরকে ফুসলিয়ে বের করতে চাচ্ছে।”

তিনি আরও বলেন, নেভি, কোস্টগার্ড তাদের বেইজে থাকে। অনেক রোহিঙ্গা প্রতিদিন নদীতে মাছ ধরতে যায়। বিশাল দ্বীপের কোন পাশ দিয়ে নৌকায় করে দালালের মাধ্যমে পালিয়ে যায় তা বোঝা মুশকিল।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, ভাসানচর থেকে রোহিঙ্গাদের পালানো ঠেকাতে পুলিশের পাশাপাশি নৌবাহিনী,  কোস্টগার্ড, এপিবিএন, আরআরআরসি, ডিজিএফআই, এনএসআইসহ সরকারের বিভিন্ন বিভাগ সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছে। এরপরও বিছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটছে। রোহিঙ্গা পালানোর প্রতিটি ঘটনা জানার সঙ্গে সঙ্গে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।

“পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গা এবং তাদের পালাতে সহায়তাকারী দালালদের আটক এবং এসব ঘটনায় মামলা হচ্ছে। নতুন করে কোনো রোহিঙ্গা যাতে পালাতে না পারে সেজন্য নজরদারি বাড়ানোর পাশাপাশি রোহিঙ্গা পাচারের সাথে জড়িতদের বিষয়ে গোয়েন্দা তৎপরতা চলছে।”

নোয়াখালী প্রশাসন থেকে জানা যায়, ভাসানচর নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার চর ঈশ্বর ইউনিয়নের প্রায় ১৩ হাজার একর আয়তনের একটি দ্বীপ। মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসে কক্সবাজারে আশ্রয় নিয়ে থাকা রোহিঙ্গাদের একটি অংশকে সাময়িকভাবে স্থানান্তরের জন্য এই দ্বীপকে সাজিয়ে তোলা হয়; যেখানে এক লাখ রোহিঙ্গার বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা, বিনোদন ও জীবিকা নির্বাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এই দ্বীপের মধ্যে ১৭০২ একর জমির চারপাশে উঁচু বাঁধ নির্মাণ করা হয় জোয়ার ও জলোচ্ছ্বাস ঝুঁকি থেকে রক্ষার জন্য। এর ভেতরেই রোহিঙ্গাদের আবাসন ও অন্যান্য ব্যবস্থার জন্য ৪৩২ একর এবং ভবিষ্যতে প্রকল্পের সম্প্রসারণ ও বনায়নের কাজে ৯১৮ একর এলাকা রাখা হয়েছে।

সূত্র- বিডিনিউজ