নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে নেতাদের হাসিনার নির্দেশনা

0

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আওয়ামী লীগ। এরই মধ্যে  নির্বাচনী  ইশতেহার আপডেট করতে উপকমিটিগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গতকাল (৯ সেপ্টেম্বর) বৃহস্পতিবার দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক শেষে গণভবনের মূল দরজায় দাঁড়িয়ে আলোচনার বিষয়বস্তু সাংবাদিকদের জানাতে গিয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ কথা বলেন।

দলটির বিভিন্ন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দলের কার্যনির্বাহী সংসদের সভায়ও বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সভা শেষে সাংবাদিকদের বিষয়টি অবহিত করেন। গণভনে অনুষ্ঠিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, সকাল সাড়ে ১০টা থেকে প্রায় সাড়ে তিনটা পর্যন্ত বৈঠক হয়েছে। এতে মুলত ফোকাসটা ছিলো সাংগঠনিক বিষয় এবং পরবর্তি নির্বাচনের প্রস্তুতির বিষয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, পরবর্তী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতির লক্ষ্যে আমাদের অর্থনৈতিক নীতিমালা প্রণয়ন এবং সেমিনারের মাধ্যমে পরবর্তী নির্বাচনী মেনিফেস্টোতে অন্তর্ভূক্তযোগ্য শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের মতো বিভিন্ন বিষয়ের সুপারিশ বা আপডেট তৈরির জন্য উপকমিটিগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বৈঠকে উপকমিটির কয়েকজন সদস্য সচিবের বক্তব্যও শুনেছেন দলের সভাপতি।

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, বৈঠকে ৮ জন সাংগঠনিক সম্পাদক তারা লিখিত রিপোর্ট করেছেন। এর মধ্যে চট্রগ্রামের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন না তার পক্ষে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ রিপোর্ট উপস্থাপন করেছেন। তাদের এলাকার ইউনিয়ন ওয়ার্ড পর্যন্ত রিপোর্ট আমাদের নেত্রীর সামনে উপস্থাপন করেছেন এবং জানিয়েছেন প্রকৃত অবস্থা। যেখানে যে যে সমাধান করা দরকার সেগুলোর বিষয়ে তিনি নির্দেশনা দিয়েছেন। কিছু কিছু ছোট খাটো কলহ বিবাদ আছে সেগুলোও সমাধান করার নির্দেশ তিনি দিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, পাবনা পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে ওখানে অনেকে বিদ্রোহ করেছিলো। তারা ক্ষমা চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন নেত্রী বরাবর। তাদেরকে ক্ষমা করে দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি আবার এটাও বলেছেন যারা দলের শৃঙ্খলার বিরুদ্ধে কাজ করছে বিভিন্ন জায়গায় তাদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিকভাবে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নিতে হবে, ছাড় দেওয়া যাবে না।